ভারতের ক্রাশ রাস্মিকা মান্দানার জীবনের গল্প – Rashmika Mandanna Biography

বাংলাদেশী ভারতীয়
Spread the love

ভারতের ক্রাশ রাস্মিকা মান্দানার জীবনের গল্প
[Rashmika Mandanna Biography | Rashmika Mandanna Life History | Rashmika Mandanna Success Story]

সুপ্রিয় রিডার্স,আজকে দক্ষিণ ভারতের এমন একজন অভিনেত্রী সম্বন্ধে আলোচনা করবো যিনি অভিনয় ও সৌন্দর্যের গুণে কোটি দর্শকের মনে জায়গা করে নিয়েছেন ইতিমধ্যে।যার সিনেমা মানেই হিট।হে বলছিলাম রাশমিকা মান্দানা’র কথা।চলুন তাহলে শুরু করি…
প্রাথমিক জীবন ও পরিবারঃ
রাশমিকা মান্দানা ৫ এপ্রিল ১৯৯৬ সালে কার্ণাটক রাজ্যের কোড়গু জেলার বীরজাপেত নামক শহরে সুমন ও মদন মান্দানা’র ঘরে জন্মগ্রহন করেন। মহীশূর বাণিজ্য ও কলা ইনস্টিটিউট-এ প্রাক-বিশ্ববিদ্যালয় কোর্স করার আগে তিনি কোড়গু পাবলিক স্কুল (সিওপিএস), কোড়গুতে পড়াশোনা করেছিলেন। তিনি এমএস রামাইয়া কলা, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য কলেজ থেকে মনোবিজ্ঞান, সাংবাদিকতা এবং ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন । পড়াশুনার পাশাপাশি তিনি মডেলিং করছিলেন এবং বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপনেও কাজ করেছিলেন।২০১৪ সালে ক্লিন অ্যান্ড ক্লিয়ার ফ্রেশ ফেস অব ইন্ডিয়া খেতাব অর্জন। ক্লিন অ্যান্ড ক্লিয়ার এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। তারপরে লামোডে বেঙ্গালুরুর টপ মডেল হান্টে ২০১৫-তে তিনি টিভিসির খেতাব অর্জন করেছিলেন। প্রতিযোগিতায় তার ছবিগুলি দেখে কিরিক পার্টি সিনেমা-র নির্মাতা মুগ্ধ হয়,যার ফলস্বরূপ রশ্মিকা কিরিক পার্টি সিনেমাতে প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের করার প্রস্তাব দেন।
অভিনয় ক্যারিয়ারঃ
মান্দানা মাত্র ১৯ বছর বয়সে ২০১৬ সালে কিরিক পার্টি সিনেমার মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন।সিনেমাটির বাজেট ছিল ৪ কোটি রুপি এবং আয় করে ৫০ কোটি রুপি।সিনেমাটি বক্স অফিসে অল টাইম ব্লকবাস্টার হয়।সিনেমাটি কন্নড় সিনেমা হলে চলে টানা ২৫০ দিন।এই অভিনেত্রী তার অসাধারণ অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ লাভ করেন সেরা অভিষিক্ত অভিনেত্রী হিসেবা সাইমা পুরস্কার।২০১৭ সালে মুক্তি পায় ৩টি চলচ্চিত্র আঞ্জানী পুত্রা,চমক।চমক সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য লাভ করেন সেরা কন্নড় অভিনেত্রী হিসেবে ফিল্ম ফেয়ার চলচ্চিত্র পুরস্কার.২ টি সিনেমাই বক্স অফিসে হিট।২০১৮ সালে মুক্তিপায় ২ টি সিনেমা চালো এবং গীতা গোবিন্দম। চালো সিনেমার মাধ্যমে রাস্মিকা তেলুগু ভাষার চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘঠে। ৫ কোটি রুপি বাজেটের গীতা গোবিন্দম সিনেমাটি আয় করে ১৩০ কোটি রুপি এবং বক্স অফিস রিপোর্ট অনুযায়ী এটি অল টাইম ব্লকবাস্টার।
২০১৯ সালে মুক্তি পায় যাজামানা, ডিয়ার কমরেড।দুটি সিনেমাই সুপার হিট।২০২০ সালে মুক্তি পায় সারিলেরু নিকেভ্যারু, ভীষ্ম।মহেশ বাবুর বিপরীতে অভিনয় করা সারিলেরু নিকেভ্যারু সিনেমাটি আয় করে ২৬০ কোটি রুপি,যা বক্স অফিস রিপোর্ট অনুযায়ী ব্লকবাস্টার।নিতীন এর বিপরীতে অভিনয় করা ভীষ্ম সিনেমাটি বক্স অফিস হিট।তারপর ২০২০ সালে মুক্তি পায় পগারু, সুলতান।সিনেমা দুটিই বক্স অফিস হিট।
২০২১ সালের শেষের দিকে আল্লু অর্জুন এর বিপরীতে মুক্তি পেতে যাচ্ছে পুষ্পা।“মিশন মজনু” সিনেমার মাধ্যমে সিদ্ধার্থ মালহোত্রার বিপরীতে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে অভিষেক হতে যাচ্ছে এই অভিনেত্রী।তাছাড়াও আরও একটি বলিউড ছবিতে তাকে দেখা যাবে অমিতাভ বচ্চন এর সাথে।সিনেমার নাম গুড বাই।
রাশমিকার এই ছোট্টো ফিল্মি ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত মুক্তি পেয়েছে ১২টি সিনেমা।
ব্যক্তিগত জীবনঃ
রাস্মিকার ১ম সিনেমার নায়ক রাকসিত শেট্টির সাথে বাকদান সম্পন্ন করেছিলেন।তাদের কিরিক পার্টি সিনেমাতে অভিনয়ের সময় পরিচয় এবং সেখান থেকেই প্রেম।২০১৭ সালে তাদের ২ জনের বাকদান সম্পন্ন হয়।কিন্তু এই যোগলের পারস্পরিক অসামঞ্জস্যতার কারনে ২০১৮ সালে আলাদা হয়ে যান।
মোট সম্পত্তিঃ
রশ্মিকা মান্ডান্নার বর্তমান সম্পদ প্রায় ৪ মিলিয়ন ডলার, যা ভারতীয় রুপিতে এক কোটি পঁয়ষট্টি লক্ষ ভারতীয় রুপির সমতুল্য। (২৯ কোটি)
তিনি সিনেমা প্রতি পারিশ্রমিক নেন ২ কোটি রুপি।
গাড়ি সংগ্রহঃ
রাশমিকা মান্দানা দামী দামী গাড়িতে চড়তেই বেশি স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন।তার কাছে আছে দামী দামী অনেক গাড়ির সংগ্রহ।এক নজরে দেখে নেয়া যাক তার গাড়ি কালেকশন…
• হুন্ডাই ক্রেটা (বাজার মূল্য ২৫ লক্ষ রুপি)
• মার্সিডিজ বেঞ্জ (বাজার মূল্য ১ কোটি রুপি)
• টয়োটা ইনোভা (বাজার মূল্য ২০ লক্ষ রুপি)
• অডি কিউ৩ (বাজার মুল্য ৬০ লক্ষ+ রুপি)
সবমিলিয়ে তার কাছে ২ কোটি রুপি মূল্যের গাড়ি সংগ্রহে আছে। ভবিষতে এই অভিনেত্রীর সংগ্রহে আরও দামী দামী গাড়ি থাকবে বলে আশা করা যায়।
পুরস্কার প্রাপ্তিঃ
তিনি তার অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ ৬ টি পুরস্কার অর্জন করেছেন এবং ৬ টি পুরস্কারে ভূষীত হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *