বাংলাদেশী
Spread the love

পলাশ থেকে বাংলাদেশের বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা কাবিলা হয়ে উঠার গল্প।

হ্যালো,সবাই ক্যামন আছেন।আশা করি ভালো।

Title দেখেই বুঝে গেছেন হয়তো। হুম ঠিকই ধরেছেন।আজকে ব্লগে আলোচনা করবো,বাংলাদেশের বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল হক পলাশ ওরফে কাবিলা।
চলুন তাহলে শুরু করা যাক।

জিয়াউল হক পলাশ,তবে ব্যাচেলর পয়েন্ট নাটকে অভিনয়ের সুবাদে বর্তমানে তিনি সবার কাছে কাবিলা নামেই বেশি পরিচিত।এই জনপ্রিয় অভিনেতা ৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৩ সালে নোয়াখালী জেলার সোনাইমুরী উপজেলার অন্তর্গত কালিকাপুর গ্রামে জন্মগ্রহন করেন।তার বাবার নাম মুজিবুল হক।

এই জনপ্রিয় অভিনেতা সরকারী ল্যাভরেটরী হাই-স্কুল-ঢাকা থেকে এস এস সি পাশ করেন।তবে ২ বারে।১ম বার ২০০৯ সালে মায়ের সাথে রেজাল্ট আনতে গিয়ে জানতে পারেন তিনি পাশ করেন নি।মা-ছেলে ২ জনই হতাশ হয়ে বাসায় ফেরেন।তার পর ২০১০ সালে ২য় বারে এস এস সি পাশ করেন। এইস এস সি তে আবার ইয়ারলস এবং ২০১৩ সালে পাশ করেন এইস এস সি।তারপর ঢাকা তিতুমীর কলেজে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিষয়ে।

সুপ্রিয় Readers,জীবনের মাঝখানে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘঠনা ঘঠে গেছে যা না বললেই নয়।তিনি যখন ইন্টার মিডিয়েটে পড়েন তখন তিনি একজনের সাথে প্রেম করতেন।তারা ২ জনই স্বপ্ন দেখে ছিলেন ঘর বাধার।কিন্তু তাদের দুইজনের মধ্যে কমিট্মেন্ট ছিল এই রকম যে,তার গার্লফ্রেন্ড কে পেতে হলে পলাশ কে হতে হবে ইঞ্জিনিয়ার। সেই মোতাবেক পলাশ ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্নে বিভোর।ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভর্তি হয়ে তবেই পলাশ তার গার্লফ্রেন্ডের পরিবারের মুখোমুখি হবেন।কিন্তু কপালের লিখন না যায় খন্ডন।ইঞ্জিনিয়ারিং পড়বেন দূরের কথা,এইস এস সি তে করলেন ফেইল।আর তিনি যেহেতু বান্ধবীর কথা রাখতে পারলেন না,সেহেতু তার গার্লফ্রেন্ড উড়াল দিল অন্যের আকাশে।

তবে তিনি হার মানলেন না।

ছোটকালে প্রায় সব ছেলে-মেয়েরই ইচ্ছা থাকে বড় হয়ে এই হব তো সে হব।একই রকম ভাবে,পলাশ যখন গভমেন্ট ল্যাভরেটরীতে পড়াশোনা করেন,তখন তিনি প্রায় সময়ই মুস্তফা সরয়ার ফারুকীর কাজ দেখতেন।আজ এই রাস্তায় শুটিং তো কাল ওই বাড়ির ছাদে শুটিং। শুটিং টিমের সবাই উঠছে, বসছে এবং কাজ করছে ফারুকীর নির্দেশে। এই দেখ দেখতে তার ভেতরও জেগে ওঠে পরিচালক হওয়ার চারাগাছ। এমনকি,পরীক্ষার খাতায় লিখে দিয়ে আসেন-My aim in life is to be a Director.

তারপর তিতুমীর কলেজে পড়াকালীন সময়ে ঠিকই যোগ দেন ফারুকীর দলে। দুই বছর কাজ করেছেন ফারুকীর Assistent Director হিসেবে। তিন বছর একই কাজ করেছেন ইশতিয়াক আহমেদ রুমেলের সঙ্গে। কিন্তু এই সহকারী পরিচালক হুট করেই হয়ে গেলেন অভিনেতা!নাটকটির নাম ছিল ‘ট্যাটু’। সে নাটকে চাপাবাজির দৃশ্যে দুর্দান্ত অভিনয় দিয়েই দর্শকদের সামনে হাজির জিয়াউল হক পলাশ। তখন থেকেই তাঁর ‘চাপাবাজি’র অভিনয়কে বেশ পছন্দ করতে শুরু করে দর্শক। নোয়াখালী জেলার আঞ্চলিক ভাষায় চাপাবাজি দিয়ে দর্শকদের কাছে পরিচিত হয়ে এ তরুণ। তার একে একে অভিনয় করেছেন- ‘Bachelor Point’, ‘Ex-Boyfriend’, ‘Ex Girlfriend’, ‘Bachelor Eid’, ‘Bachelor Trip’, ‘Me & You’, ‘InComplite’, ‘মুঠোফোন’সহ অসংখ্য নাটকে। পরিচালনা করেছেন ‘Friend with Benefit”’ ও surprise”। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছেনকাজল আরেফিনের নির্মাণে ‘Bachelor Point’-এ কাবিলা চরিত্রে অভিনয় করে। তাছাড়া ফ্যামিলি ক্রাইসিস নাটকটি ও দর্শক ভালোভাবেই গ্রহণ করেছে। এই নাটকে ১৮২ পর্ব নির্মিত হয়েছে।এতে তিনি‘পারভেজ’ নামের একটি চরিত্রে অভিনয় করছেন পলাশ।

তিনি অভিনয় থেকে পরিচালনা করতেই বেশি ভালোবাসেন। তিনি বলেন, ‘দিন শেষে পরিচালকই আমার আসল পরিচয়। আমি খুব বেশি নাটকে অভিনয় করতে চাই না।

তার জন্য থাকলো অনেক শুভ কামনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *